সুপার ওভারে বিশ্বকাপ জিতল ইংল্যান্ড

শিরোপার স্বাদ কেমন, তা জানা ছিলো না দুই দলের কারোরই। এর আগে তিনবার ফাইনাল খেলেও ট্রফিতে চুমু খাওয়া হয়নি ইংল্যান্ডের।

অন্যদিকে বিশ্বকাপের গত আসরে ঘরের মাঠে হওয়া টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলেও, চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি নিউজিল্যান্ড।

এবারের বিশ্বকাপে ৬ বার ৩০০+ রান করা ইংলিশদের সামনে মাত্র ২৪১ রানের সংগ্রহ দাঁড় করিয়ে কাঁপিয়ে দিয়েছিল কেন উইলিয়ামসনের দল।

শেষ ওভারে ইংল্যান্ডের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ১৫ রান। ট্রেন্ট বোল্টের করা সে ওভার থেকে ১৪ রান নিতে পারেন বেন স্টোকস। যে কারণে বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টাই হয় ফাইনাল ম্যাচ এবং শিরোপা নির্ধারণের জন্য ম্যাচ নেয়া হয়েছে সুপার ওভারে।

সুপার ওভারে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ইংল্যান্ড। বাটলার এবং বেন স্টোকস মিলে ১৫ রান করে। এরপর ১৬ রানের লক্ষে ব্যাট করতে নেমে ১ ওভারে ১৫ রান করে নিউজিল্যান্ড। আর এতেই বিশ্বকাপের ১ম বারের মত শিরোপা জিতে ইংল্যান্ড।

টাইগারদের কোচ নিয়োগের বিজ্ঞাপন দিয়েছে বিসিবি, থাকতে হবে যেসব যোগ্যতা

চলতি বিশ্বকাপে প্রত্যাশা অনুযায়ী বাংলাদেশের ফলা না হওয়াতে রোডসের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে বিসিবি। এখন বিজ্ঞাপণ দিয়ে নতুন কোচের সন্ধানে নেমছে সংস্থাটি। এদিকে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ‘টাইগার ক্রিকেট ডট কম’-এ বিজ্ঞাপণটি দেয় বিসিবি। আগামী ১৮ জুলাইয়ের মধ্যে তাদের জীবন বৃত্তান্ত বিসিবির কাছে জমা দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

এই বিজ্ঞাপণে আগ্রহী কোচদের বিশ্লেষণী ক্ষমতা, কম্পিউটারে দক্ষতা, যোগাযোগে দক্ষতাসহ ক্রিকেটারদের সঙ্গে ভালো যোগাযোগ রক্ষা, রিপোর্ট লেখার দক্ষতার যোগ্যতা চাওয়া হয়েছে। আগ্রহী কোচকে অবশ্যই আইসিসির পূর্ণ সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাসহ এলিট পর্যায়ের কোচিংয়ের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

এদিকে আগামী ২৬ তারিখ থেকে শ্রীলঙ্কায় শুরু হবে বাংলাদেশের তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। এই সিরিজে টাইগাররা খেলবেন অন্তরবর্তী কোচের অধীনে। এ ছাড়া আগামী নভেম্বরে ভারত সিরিজ আছে। এই সিরিজের আগে যেকোনো মূল্যে কোচ নিয়োগ করতে চায় বোর্ড।

এর আগে গত ২০১৮ সালের ২২ জুন থেকে মাশরাফীদের কোচের দায়িত্বে ছিলেন স্টিভ রোডস। প্রায় ১৩ মাস কাজ করেছেন টাইগারদের নিয়ে। কিন্তু বিশ্বকাপে খারাপ পারফর্মেন্সের কারণে পূর্ণ মেয়াদ থাকতে পারেননি তিনি।

এবারের বিশ্বকাপ থেকে বাংলাদেশ বিদায় নেয় শেষ চারে ওঠার আগেই। ৮ ম্যাচ খেলে ৩ জয়ে ৭ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ৮ নম্বরে।

আইপিএলে মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ?

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) খেলার সুযোগ পাওয়া বাংলাদেশি ক্রিকেটারের সংখ্যা খুব কম। বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও জমজমাট ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে জায়গা করে নেওয়ার দিক থেকে বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা একটু পিছিয়েই আছেন।

ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ঘরোয়া লীগের আসর আইপিএলে খেলার স্বপ্ন থাকে অনেকেরই। তেমনই একজন ক্রিকেটার বাংলাদেশের পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন।

বিশ্বকাপে সুবিধা করতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে এর মধ্যেও ছিল বেশ কিছু অর্জন। যেখানে সবার উপরে থাকবেন সাকিব আল হাসান ও মোস্তাফিজুর রহমান। আর তারপরেই থাকবেন প্রথমবার বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়া পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন।

বিশ্বকাপে দারুন পারফর্ম করেছেই এই পেস অলরাউন্ডার। বোল হাতে যেমন নিয়েছেন ১৩ উইকেট। ব্যাট হাতেও ছিলেন খুব একটা মন্দ না। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে যখন সাকিবের আউটের পর সবাই ভেবেছিল তখনই হেরেছে বাংলাদেশ, সে কথাকে মিথ্যে প্রমান করেন সাইফুদ্দিন। লড়াই তরে কাপুনি ধরে দেন কোহলিদের। বিশ্বসেরা বোলিং লাইন আপকে সামলে ৩৮ বলে, ৫১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন।

ফেনী থেকে ফোনে আনন্দবাজারকে একান্ত সাক্ষাৎকারে সাইফুদ্দিন বললেন, ‘‘ধোনি কেন অধিনায়ক হিসেবে এত সফল, তা জানার চেষ্টা করতাম ছোট থেকেই। বুঝতাম, উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়ে আঙুল ও হাতের মাধ্যমে বোলারকে কিছু একটা নির্দেশ দেয়। ভারতের বিরুদ্ধে ব্যাট করার সময় প্রত্যেক বলের আগে এক বার ধোনির দিকে তাকাতাম। লক্ষ্য করতাম হাত দিয়ে ঠিক কী ইশারা করে!’’

কিছু ধরতে পারলেন? তাঁর উত্তর, ‘‘অবশ্যই। হার্দিক বল করার সময় ধোনিকে দেখছিলাম বারবার বুকে হাত দিচ্ছে। তার পরের বলটিই বাউন্সার করছে হার্দিক। তখনই বুঝলাম, এটা বাউন্সারের নির্দেশ। কখনও দেখছিলাম বুমরাকে পায়ের দিকে আঙুল দেখাচ্ছে। পরের বলেই ইয়র্কার ধেয়ে আসছে। এ ভাবেই একাধিক ইঙ্গিত দিয়ে ব্যাটসম্যানকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে ধোনি।’’

সাইফউদ্দিন জানিয়েছেন, কলকাতা তার প্রিয় শহর। তাই কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়েই খেলার ইচ্ছা। আবার ধোনির নেতৃত্বে খেলারও শখ। সেক্ষেত্রে হয়ত চোখ রাখতে হবে চেন্নাই সুপার কিংসে! তবে কলকাতার প্রতি দুর্বলতা প্রকাশ পেল আলাদা করে।

সাইফউদ্দিন বলেন, ‘সব চেয়ে খুশি হব ধোনির নেতৃত্বে খেলার সুযোগ পেলে। তা না হলে আমার প্রিয় শহর কলকাতার হয়ে খেলতে চাই। সাকিব (সাকিব আল হাসান, যিনি কলকাতা নাইট রাইডার্সে খেলে পেয়েছিলেন ভীষণ জনপ্রিয়তা ভাইয়ের মতোই এপার বাংলার ভালবাসাও কুড়িয়ে নিতে চাই।’সাইফউদ্দিনের আইপিএল খেলার স্বপ্ন কি পূরণ হবে।

এই মাত্র পাওয়াঃ শ্রীলংকা সফরে বাংলাদেশ একাদশে বড় চমক

আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরে সাকিব আল হাসানের বিকল্প খুঁজছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জাতীয় দলের নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন। টানা ক্রিকেটের মধ্যে থাকা সাকিব সম্প্রতি বোর্ডের কাছে ছুটি চেয়ে আবেদন করেছেন।

বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই শ্রীলঙ্কায় তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ । ব্যক্তিগত কারণে এই সিরিজে দেখা যাবে না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ও লিটন দাসকে । এছাড়াও মাশরাফিসহ মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহকে তাঁদের ফিটনেসের পরিক্ষা দিতে হবে৷ সবমিলিয়ে কিছু পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাবে শ্রীলঙ্কা সিরিজের স্কোয়াডে।

স্কোয়াড পরিকল্পনা নিয়ে গতকাল মিরপুরে শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও নির্বাচক হাবিবুল বাশার জানান , ‘বিশ্বকাপে চোট নিয়েই খেলেছে মাশরাফি। শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার আগে ওকে একটা ফিটনেস টেস্ট দিতে হবে। তা ছাড়া লিটন ছুটি চেয়েছে। ও শ্রীলঙ্কায় যেতে পারবে না।

সাকিবও ছুটি চেয়েছে। তবে ওর ব্যাপারটা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে আমরা সব কিছুর জন্যই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। দল চূড়ান্ত করার আগে বিশ্বকাপে খেলে আসা ক্রিকেটারদের চোট নিয়ে রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছেন নির্বাচকরা। দলে কয়েকজনের চোট সমস্যা আছে। মাহমুদউল্লাহ, মুশফিকুর রহিমের চোট নিয়ে রিপোর্টের অপেক্ষায় আছি। ওরা কিছু দিন বিশ্রাম পেয়েছে। আশা করি ওদের খেলতে কোনো সমস্যা হবে না।’

এদিকে দলের অন্যতম দুই সদস্য সাকিব ও লিটনের অনুপস্থিতে তাঁদের জায়গায় কে খেলবেন সেটাও একটি প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে ৷ তাঁদের স্থলে হয়তো সাব্বির রহমানসহ অন্য একজনকে সুযোগ দিতে পারে বিসিবি। বাকি সবাই পূর্বের নিয়মেই নিজেদের অবস্থানে থাকবেন। তবে এ সম্পর্কে বিস্তারিত শ্রীঘ্রই বিসিবির পক্ষ থেকেই জানা যাবে।

একনজরে বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা সফরের সূচি

তারিখ ম্যাচ/যাত্রা ভেন্যু
২৬ জুলাই ২০১৯ ১ম একদিনের ম্যাচ (দিবারাত্রি) আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো
২৮ জুলাই ২০১৯ ২য় একদিনের ম্যাচ (দিবারাত্রি) আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো
৩১ জুলাই ২০১৯ ৩য় একদিনের ম্যাচ (দিবারাত্রি) আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো
১ আগস্ট ২০১৯ শ্রীলঙ্কা ত্যাগ করবে বাংলাদেশ দল

বিশ্বকাপ জিতলে শুধু বোনাস হিসাবে ২ কোটি টাকা পাবে মরগ্যানরা

বিশ্বকাপ জিতলে দল হিসেবে আইসিসির তরফ থেকে ৩৪ কোটি টাকার প্রাইজমানি আছে। কিন্তু এর বাইরেও সরকারের পক্ষ থেকে ইংল্যান্ডের ক্রিকেটাররা প্রত্যেকে পাবেন মোটা অঙ্কের আর্থিক পুরস্কার। ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) ও সরকারি ব্যবস্থাপনায় বিশ্বকাপ জয়ী প্রত্যেক ইংলিশ ক্রিকেটারের জন্য থাকছে ২ লক্ষ পাউন্ডের প্রাইজমানি। যা বাংলাদেশি টাকার অঙ্কে দাঁড়ায় ২ কোটি ১০ লক্ষের মতো। রোববার (১৪ জুলাই) নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ ফাইনালে নামার আগে এমন খবরই দিচ্ছে ব্রিটেনের গণমাধ্যম।

কেবল ক্রিকেটারদের বোনাসই নয়, ২৭ বছর পর জাতীয় উৎসবের বড় উপলক্ষ তৈরি হওয়ায় ব্রিটিশ সরকার নিয়েছে নানান উদ্যোগ। ফাইনালের দিন লন্ডনের ব্যস্ততম ট্রাফালগার স্কোয়ারে তৈরি করা হচ্ছে ফ্যান জোন। একসঙ্গে হাজার হাজার মানুষ যাতে খেলা দেখতে পারেন, সেজন্য বসানো হচ্ছে জায়ান্ট স্ক্রিন।

ফাইনালের টিকিটের নাম হু হু করে বাড়ছে। বাড়তি দাম দিয়েও সরাসরি খেলা দেখতে মরিয়া অনেকে। কিন্তু যারা মাঠে যেতে পারবেন না, তারা যাতে কেউই খেলা মিস না করেন সেজন্য ব্যবস্থা নিয়েছে স্কাই স্পোর্টস। তাদের পে-চ্যানেলের ফিড এদিন বিনামূল্যে চ্যানেল ফোরের মাধ্যমে ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া হবে।

এর আগে ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে পাকিস্তানের কাছে হেরে যায় ইংল্যান্ড। আরেকটি ফাইনালে পৌঁছাতে তাই তাদের লেগে গেছে ২৭ বছর। ক্রিকেটের জনক দেশ হয়েও বিশ্বকাপ জেতার স্বাদ পায়নি ইংল্যান্ড। নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে কাপ জেতার আবহ তাই ছড়িয়ে পড়েছে ব্রিটেন জুড়ে।-ডেইলিস্টার বাংলা

জোড়া দুসংবাদ পেলো বাংলাদেশ

হ্যামস্ট্রিংয়ের ইনজুরি নিয়েই বিশ্বকাপে খেলেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। তাই দেশে ফেরার পর গুঞ্জন ছিল শ্রীলঙ্কা সিরিজে বিশ্রামে থাকতে পারেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। তবে গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে শ্রীলঙ্কা সিরিজে যাচ্ছেন তিনি। মাশরাফির ঘনিষ্ঠ এক সূত্রে এমনটাই জানা গেছে। এছাড়া একই ইঙ্গিত দিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অন্যতম নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমনও।

আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই ঘোষণা করা হবে শ্রীলঙ্কা সিরিজের বাংলাদেশ জাতীয় দল। এর মধ্যে দল অনেকটাই গুছিয়ে এনেছেন নির্বাচকরা। মাশরাফির খেলা প্রসঙ্গে শুক্রবার (১২ জুলাই) বাশার বললেন, ‘আমার মনে হয় সে ফিট।

তার ফিটনেসটা অনেকটাই তার নিজের ওপরে নির্ভর করে। একটা ফিটনেস টেস্ট দিতে তো হবে। কারণ একটু দুশ্চিন্তা তো অবশ্যই আছে। কারণ ও কিন্তু ইনজুরি নিয়েই বিশ্বকাপ খেলেছিল। একটু সময় পেয়েছে সেরে ওঠার। আশা করছি, শ্রীলঙ্কা সফরের আগে সুস্থ হয়ে যাবে। কারণ সে খেলবে না, এমন কিছু আমাদের কাছে আসে নাই।’

তবে শ্রীলঙ্কা সিরিজে থাকছেন না লিটন কুমার দাস। বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ছন্দে থাকা সাকিব আল হাসানের থাকাও নিশ্চিত নয় বলেই জানালেন বাশার, ‘এটা নিয়ে আমরা বসেছিলাম। তাদের বিকল্প কাকে নেওয়া যায়। লিটন ছুটি চেয়েছে।

বিয়ে করছে। আর সাকিব সম্ভবত আগেই ছুটি নিয়েছিল। সেটাও আমরা নিশ্চিত হইনি। আমাদেরকে দুইটা বিকল্পই রাখতে বলা হয়েছে। সেভাবেই চিন্তা-ভাবনা করছি। এখনও ফাইনাল রিপোর্ট পাইনি। লিটনেরটা জানি ছুটি নিয়েছে, সাকিবেরটা এখনও জানি না, পারবে কি পারবে না।’

বিশ্বকাপ শেষে দেশে ফিরে বিশ্রামে রয়েছেন ক্রিকেটাররা। মাশরাফি ছাড়াও বেশ কিছু খেলোয়াড়ের ইনজুরি নিয়ে দুশ্চিন্তা রয়েছে। তবে শ্রীলঙ্কা সফরে সবাইকে পাবেন বলে আশাবাদ প্রকাশ করলেন বাশার, ‘একটা লম্বা সফর করে এসেছে সবাই। একটু বিশ্রাম দরকার ছিল সবার।

কয়েক জনের ইনজুরি নিয়ে দুশ্চিন্তা রয়েছে। সে রিপোর্ট অবশ্য পাইনি। তবে যতদূর জানি, সবাই মোটামুটি (খেলতে) পারবেন। এ সিরিজে নতুন করে শুরু করা দরকার আমাদের। আশা করছি সবাইকে সুস্থ পাব। তাহলে সেরা দল নিয়েই যেতে পারব আমরা।’

শ্রীলঙ্কার উদ্দেশে আগামী ২০ জুলাই দেশ ছাড়বে বাংলাদেশ দল। এর আগে কোন ধরনের প্রস্তুতি ক্যাম্প হবে না দেশে। শ্রীলঙ্কায় পৌঁছে ২৩ জুলাই একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। আগামী ২৬ জুলাই মাঠে গড়াবে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। এরপর ২৮ ও ৩১ জুলাই বাকি দুটি ওয়ানডে খেলবে বাংলাদেশ।

আদিল রশিদের ঘূর্ণিতে হঠাৎ লণ্ডভণ্ড অস্ট্রেলিয়া

বড় দলগুলোর চরিত্রই এমন। কঠিন বিপদের মুখে কেউ না কেউ দাঁড়িয়ে যাবেই। দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তেমনি দলের কঠিন বিপদের সময় ত্রাণকর্তা হিসেবে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন স্টিভেন স্মিথ এবং অ্যালেক্স ক্যারে।

তাদের দু’জনের ব্যাটে ১০৩ রানের দুর্দান্ত জুটি গড়ে ওঠার পর হঠাৎই ঝড় তোলেন আদিল রশিদ। তার মায়াবী ঘূর্ণিতে একই ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে বসে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

১৪ রানে যেখানে ৩ উইকেট নেই, সেখানে অস্ট্রেলিয়ার শেষটাই আজ দেখে ফেলেছিল সবাই। ম্যাচ শেষে পরিস্থিতি কি দাঁড়ায়, সেটা এখনই বলা না গেলেও, অস্ট্রেলিয়া যে এমনি এমনিই ম্যাচটা ছেড়ে দেবে না, তা বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন স্মিথ-ক্যারে। দু’জনের ব্যাটে গড়ে ওঠে ১০৩ রানের জুটি। ১৪ রান থেকে দু’জন অস্ট্রেলিয়াকে নিয়ে যান ১১৭ রান পর্যন্ত।

কিন্তু ২৮তম ওভারে বোলিং করতে এসেই ইংলিশ লেগ স্পিনার আদিল রশিদের মায়াবী ঘূর্ণি ফাঁদে পড়ে পরিবর্তিত ফিল্ডার জেমস ভিন্সের হাতে ক্যাচ দেন উইকেটে সেট হয়ে যাওয়া অ্যালেক্স ক্যারে। ৭০ বল খেলে ৪৬ রান করে আউট হন তিনি।

এরপর একই ওভারের শেষ বলে আদিল রশিদের বলটা ঠিকমত বুঝতে পারেননি মার্কাস স্টইনিজ। তার বল পায়ে লাগার পরই জোরালো আবেদন করেন আদিল রশিদ। আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা অনেক্ষণ সময় নিয়ে এরপর ধীরে ধীরে আঙ্গুল তোলেন। তার আউট দেয়ার স্টাইল দেখেই মনে হচ্ছিল যেন, ইচ্ছার বিরুদ্ধে আউটটা দিয়েছেন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার দুর্ভাগ্য, রিভিউ বাকি ছিল না, তাই রিভিউর আবেদনও করতে পারেনি তারা। ১১৮ রানে পড়ে পঞ্চম উইকেট।

এ রিপোর্ট লেখার সময় অস্ট্রেলিয়ার রান ৩০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৩০। ৭৭ বলে ৫৯ রান নিয়ে ব্যাট করছেন স্টিভেন স্মিথ এবং ৭ বলে ৩ রান নিয়ে ব্যাট করছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নামার পর অস্ট্রেলিয়ার যে অবস্থা হয়েছিল, তাতে মনে হচ্ছিল বুঝি এজবাস্টনে যেন ফিরে এলো ওল্ড ট্র্যাফোর্ড। পুরোপুরি ভারতের মতই অবস্থা দাঁড়িয়েছিলো অস্ট্রেলিয়ার। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ইংলিশ বোলারদের তোপের মুখে পড়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে ৫ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। মাত্র ১০ রানেই ২টি এবং ১৪ রানে হারিয়ে বসে ৩টি উইকেট।

বার্মিংহ্যামের এজবাস্টনে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারোন ফিঞ্চ। কিন্তু ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ইংলিশ পেসারদের তোপের মুখে পড়েন তারা। প্রথম ওভার কোনোভাবে কাটিয়ে দিতে পারলেও দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই জোফরা আরচারকে ঠিক মত খেলতে পারেননি ফিঞ্চ।

এলবিডব্লিউর আবেদন উঠতেই আম্পায়ার আঙ্গুল তুলে দিলেন। কিন্তু সিদ্ধান্ত পছন্দ হয়নি ফিঞ্চের। তিনি রিভিউ চাইলেন। দেখা গেলো সত্যি সত্যিই এলবিডব্লিউ ছিলেন তিনি। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তই বহাল থাকলো। কোনো রান না করেই ফিরে গেলেন ফিঞ্চ।

পরের ওভারেই ফিরে গেলেন চলতি বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা অসি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। ১১ বলে ৯ রান করেন তিনি। কিন্তু ক্রিস ওকসের দুর্দান্ত এক বাউন্সারে ব্যাটের কানায় লাগিয়ে প্রথম স্লিপে বেয়ারেস্টর হাতে ক্যাচ দেন তিনি। ১০ রানেই পড়লো ৩ উইকেট।

এরপর আরও একটি উইকেট পড়তে পারতো। জোফরা আরচারের বলে স্মিথ পরাস্ত হলে আউটের আবেদন করে ইংল্যান্ড। কিন্তু আম্পায়ার তাতে আউট না দিলেও রিভিউ নেয় ইংলিশরা। কিন্তু আম্পায়ার্স কলই রেখে দেন টিভি আম্পায়ার ক্রিস গ্যাফানি।

স্মিথ আর হ্যান্ডসকম্ব মিলে চেষ্টা করেন একটা জুটি গড়ে বিপর্যয়কে সামাল দেয়ার। কিন্তু মাত্র ৪ রানের জুটি হলো। ইনিংসের সপ্তম ওভারের প্রথম বলেই ক্রিস ওকসের আঘাত। এবার তাকে খেলতে গিয়ে ব্যাটের ভেতরের কানায় লাগিয়ে বল ভেতরে টেনে আনেন হ্যান্ডসকম্ব এবং বোল্ড হয়ে যান। ১২ বলে ৪ রান করে আউট হলেন তিনি।